সৌদি আরব জিতলে ফ্রি পিৎজার ঘোষণা দিয়ে বি’পা’কে পিৎজাবার্গ

কাতার বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে সৌদি আরব জয় পেলে ফ্রি পিৎজা খাওয়ানোর ঘোষণা দেয় পিৎজাবার্গ নামে একটি রেস্টুরেন্ট। মঙ্গলবার খেলা শুরুর আগে নিজেদের ফেসবুক পেজে এই ঘোষণা দেয় তারা।

খবর পেয়ে আর্জেন্টিনার পরাজয়ের পর রেস্টুরেন্টটির বিভিন্ন আউটলেটে গিয়ে বিনামূল্যে পিৎজা খেতে ভীড় করেন অনেক গ্রাহক। এদিকে গ্রাহকদের অনেকে অভিযোগ করছেন, ফেসবুক স্ট্যাটাসে নির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা উল্লেখ না করলেও সৌদি আরবের বিজয়ের পর কিছু পিৎজা বিনামূল্যে দিয়ে তারপর বিভিন্ন শর্তজুড়ে দিয়েছে পিৎজাবার্গ। যাকে প্রতারণা বলেও উল্লেখ করেছেন অনেকে।

মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে পিৎজাবার্গের মিরপুর শাখায় বেশ ভীড় দেখা যায়। সেখানে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা অনেকেই জানান, ফেসবুকে ঘোষণা দেখতে পেয়ে বিনামূল্যে পিৎজা খেতে এসেছেন তারা। তবে বেশ কয়েকজন অভিযোগ করেন পোস্টে নির্ধারিত কোনো সংখ্যা বা শর্ত উল্লেখ করা না হলেও এখন তারা বলছে বড় পিৎজার সঙ্গে ছোট পিৎজা ফ্রি দিচ্ছেন তারা।

বিনামূল্যে পিৎজা খেতে এসে না পেয়ে ওমর ফারুক নামে একজন বলেন, পিৎজাবার্গ তাদের ফেসবুকে যে পোস্ট দিয়েছিল সেখানে বলেছে সৌদি আরব জিতে গেলে ফ্রি পিৎজা দিবে তারা। কিন্তু এখন আমাকে বলছে বড় একটি কিনলে ছোট একটি দিবে। এটা একরকম প্রতারণা। আবিদ মোহাম্মদ নামে একজন বলেন, সৌদি আরব জেতার সাথে সাথে বহু মানুষ এসে ভীড় করেছিল। আমিও দাঁড়িয়েছি। কিন্তু প্রথম কয়েকজনকে বিনামূল্যে দিয়ে আর দেয়নি পিৎজাবার্গ। এমন ঘোষণা না দেওয়াই উচিত ছিল।

আবু সাইদ নামের আরেক যুবক বলেন, খেলা শুরুর আগে সৌদি আরব জিতলে বিনামূল্যে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল। তারা আসলে বুঝতে পারেনি যে সৌদি আরব জিতে যাবে।

এ বিষয়ে জানতে পিৎজাবার্গের ফেসবুক পেজে দেওয়া মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে রেস্টুরেন্টটির মিরপুর শাখার ম্যানেজার শামিম শাহেদ বলেন, সৌদি আরবের বিজয়ের পর আমরা ৭০টি মিডিয়াম পিৎজা বিনামূল্যে দিয়েছি। পিৎজার সাথে একটি কেল্ড ড্রিংসও দিয়েছি। এর পরও যারা আসছেন তাদের একটি বড় পিৎজার সাথে ছোট ১টি পিৎজা ফ্রি দিচ্ছি। সৌদি আরব জিততে পারবে না এমন ভাবনা থেকে এমন আয়োজন কিনা জানতে চাইলে এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি শামিম। তিনি বলেন, এটা কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *