সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে আবার চুরি, দুর্ভোগে শত শত রোগী।

ডেক্সরিপোর্টঃ সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে বিদ্যুৎ কেন্দ্রীয় সংযোগ ক্যাবল চুরি হওয়ায় পুরো হাসপাতাল অন্ধকারে। টিকেট কাউন্টার, চিকিৎসকের রুম, জরুরী বিভাগের চিকিৎসা চলছে মোমবাতি মোবাইলের আলো দিয়ে।

এমনকি ৪ বছরের ছোট বাচ্চার ঠোঁটের অভ্যন্তরে কেটে গেলে তার সেলাই দেওয়া হচ্ছে মোবাইলের আলো দিয়ে। বাচ্চাটি একে ঠোঁট কেটে গেছে, উপরন্ত প্রচন্ড গরমে খুব কষ্ট পাচ্ছে। জরুরী অপারেশন বন্ধ আছে, অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ আছে, শ্বাস কষ্ট রোগীদের জরুরী ন্যাবুলাইজার, অক্সিজেন দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। হাত পা ভাঙ্গলেও এক্স রে করা সম্ভব হচ্ছে না । এ রকম হাজারো সমস্যায় ভুগছে সৈয়দপুরে ১০০ শয্যায় আগত বহি: বিভাগ ও ভর্তি রোগীরা।


তথ্য সুত্রে জানা গেছে, এর আগেও হাসপাতালে কয়েকবার চুরি হয়েছে। অদৃশ্য শক্তির বলে প্রতিবারেই চোরের ধরা ছোঁয়ার বাহিরে থেকে যাচ্ছে। প্রতিবারেই নতুন তার লাগানো হয়, আবার কিছু দিন পর আবার চুরি হয়। রাতের বেলা রোগীদের মোবাইল, নগদ টাকা সহ হাসপাতালের মুল্যবান সামগ্রী চুরি হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ছাড়া চাঁদাবাজরা ঔষধ কোম্পানীর বিভিন্ন প্রতিনিধিদের চাঁদার জন্য হয়রানি করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদের ভিজিট কার্যক্রম অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ রেখেছে । ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিদের সংগঠন “ফারিয়ার” সাধারন সম্পাদক সত্যতা স্বীকার করেছেন।

সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালের আর এম ও মোঃ মোহাইমিনুল ইসলাম হাসপাতালের কেন্দ্রীয় বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইন চুরির অভিযোগের সত্যতা স্বীকার জানান, আসামীদের ধরতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *