সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন।

সৈয়দপুর প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে (২৫ মে) বিমানবন্দর ওয়েলফেয়ার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি একই মার্কেটে ওই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন সমিতির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গফুর সরকার। তিনি বলেন, ওই মার্কেটে আমাদের ৪৯টি দোকানঘর রয়েছে। ৫০০ টাকা হারে প্রতিমাসে ওইসব দোকানের ভাড়া দেওয়া হত। অথচ সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ গত বছর ১৯ মে থেকে মার্কেটের বিদ্যুৎ ও পানি সংযোগ বন্ধ রেখেছে। এতে করে আমরা ব্যবসায়ীরা আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি। করোনাকালে ব্যাবসায়ীদের ব্যাংক ঋনের সুদ গুণতে হয়েছে। চলতি বছরের গত ৮ মে পুণরায় ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ নোটিশ দেওয়া হয়। এমনটি হলে আমরা পথে বসবো।
এই মার্কেটের ব্যবসায়ীরা ১৯৭৮ সাল থেকে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। আমাদের উচ্ছেদ করা হলে পরিবার-পরিজন নিয়ে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবো?
সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোখলেছুর রহমান হেলাল অভিযোগ করেন, প্রতিটি দোকান মালিকের কাছে বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক ৪০ হাজার টাকা করে উৎকোচ দাবি করেছেন। তাহলে নাকি উচ্ছেদ কার্যক্রম বন্ধ রাখা হবে। এর ব্যতয় হলে আগামি এক সপ্তাহের মধ্যে পুরো মার্কেট বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দেওয়া হবে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন ওই মার্কেটের ব্যবসায়ী ইমরান আহমেদ, নূর আলম খোকন, আসাদুজ্জামান আসাদ, রবিউল ইসলাম, ফরহাদ হোসেন প্রমুখ।
এ ব্যাপারে সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক সুপলব ঘোষের সাথে কথা বললে জানান, ওই মার্কেটটির কোনো বৈধতা নেই। তাছাড়া কী পয়েন্ট ইনস্টলেশন ভূক্ত (কেপিআই) এলাকায় এভাবে মার্কেট গড়ে তোলার কোন বিধান নেই। সৈয়দপুর বিমানবন্দর এলাকায় উন্নয়ন কাজ অব্যাহত রয়েছে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় একটি প্লা্ন্ট স্থাপন করা হবে। দোকান মালিকদের কাছে চাঁদা দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মানুষ কত কথাই বলে। চাঁদা দিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ করতে হয়।
প্রসঙ্গত ওই মার্কেটে হোটেল, রেস্তোরাঁ, স্টেশনারী, কনফেকশনারী, কম্পিউটার দোকান, ফটোকপির দোকান, গালামালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকান রয়েছে।