রামকৃষ্ণ আশ্রম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি অম্লান অঙ্গ মনোরঞ্জন শীল গোপাল(এমপি)।

এনামুল মবিন (সবুজ), স্টাফ রিপোর্টারঃ এক কোটি শরনার্থী’র সেবা প্রদানকারী রামকৃষ্ণ  আশ্রম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি অম্লান অঙ্গ বললেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল(এমপি)।
দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সহ-সভাপতি মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভুদ্ধ আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই দেশের সকল ধর্মের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলির উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে। সেই সাথে জননেত্রী শেখ হাসিনার সুচিন্তায় দেশ উন্নয়নের দিকে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। ‘এক কোটি শরনার্থী’র সেবা প্রদানকারী রামকৃষ্ণ আশ্রম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি অম্লান অঙ্গ’ উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ভারতে আশ্রয়গ্রহণ করেন এক কোটি শরণার্থী। তৎকালীন প্রধান প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধি তাদের সেবা প্রদানের দায়িত্ব দেন রামকৃষ্ণ আশ্রমকে। রামকৃষ্ণ মিশনের সন্ন্যাসীরা প্রত্যেকটি শরণার্থী শিবিরে তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম করে সেবা দিয়ে মানুষগুলিকে আহার দিয়ে চিকিৎসা দিয়ে তাদের বাঁচানোর জন্য যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। তাই মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে রামকৃষ্ণ আশ্রম একটি অম্লান অঙ্গ।


রোববার (২৭ মার্চ ) বিকেলে হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের বাস্তবায়নে দিনাজপুর শহরের শ্রীশ্রী রাধা কৃষ্ণ আশ্রমের ভিত্তি প্রস্তর ফলক উম্মোচন কালে এমপি গোপাল এসব কথা বলেন।
দিনাজপুুর রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী বিভাত্মানন্দজী মহারাজ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের সকল ধর্মের মানুষ সঠিক ভাবে তাদের ধর্ম পালন করছেন। তিনি হিন্দু ধর্মীয় কল্যান ট্রাস্টকে ধন্যবাদ জানান এবং কল্যান ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মনোরঞ্জন শীল গোপালকে ধন্যবাদ জানান।


এসময় উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুুর রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী বিভাত্মানন্দজী মহারাজ, মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি সহধর্মিনী গীতা রাণী শীল, দিনাজপুর জেলা মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের প্রকল্প পরিচালক মোঃ মশিউর রহমান, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের উপ সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আমিনুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ জেলা শাখার সভাপতি মোঃ কামাল হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।