মানুষকে রক্ষা করাই হচ্ছে রাষ্ট্রের ধর্ম মনোরঞ্জন শীল গোপাল(এমপি)।

এনামুল মবিন(সবুজ), স্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ‘ধর্মীয় ও আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে পুরোহিত ও সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ’ (২য় পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্প দিনাজপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের আওতায় ভাতাপ্রাপ্ত পুরোহিত ও সেবাইতদের বার্ষিক সম্মেলন-২০২২ অনুষ্ঠিত হয়।

শনিবার (১৪ মে) দুপুরে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সম্মেলন কক্ষে প্রকল্প পরিচালক প্রফেসর শিখা চক্রবর্তী’র সভাপতিত্বে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ‘ধর্মীয় ও আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে পুরোহিত ও সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ’ (২য় পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্প দিনাজপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের আওতায় ভাতাপ্রাপ্ত পুরোহিত ও সেবাইতদের বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল(এমপি)।

মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, মানুষকে রক্ষা করাই হচ্ছে রাষ্ট্রের ধর্ম। রাষ্ট্র পরিচালনায় এর যথার্থ ভাবে পালন করছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনার অসাম্প্রদায়িক দৃষ্টির কারণেই দেশে সকল ধর্ধের মানুষ তাদের নিজ নিজ ধর্ম শান্তিপূর্ণ ভাবে পালন করে যাচ্ছেন। আর বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সাম্প্রদায়িকতার রাজনীতি করেছে। মানুষকে রক্ষা না করে উল্টো এতিমদের টাকা আত্মসাৎ করেছে। বাংলা ভাইয়ের মত সন্ত্রাসী লালন করেছে যা প্রমানিত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইমাম প্রশিক্ষণ ও পুরোহিতদের দক্ষতা বৃদ্ধির প্রশিক্ষণ প্রদান করছেন। তাই শুধু ধর্ম পালন করলে চলবে না, নিজ নিজ ধর্ম পালনের পাশাপাশি সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি প্রতিও দায়িত্ব পালন করতে হবে।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ শরিফুল ইসলাম, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ জেলা শাখার সভাপতি সুনীল চক্রবর্তী ও সাধারণ সম্পাদক রতন সিং, জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক সঞ্জিত কুমার রায়, ব্রাহ্মন সমিতির সদস্য সচিব মৃতুঞ্জয় ব্যানার্জি, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সহকারী প্রকল্প পরিচালক শাহ মোঃ মশিউর রহমান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের কনসালটেন্ট সিধেন চন্দ্র সিংহ।

এর আগে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি। সম্মেলনে ভাতাপ্রাপ্ত বিভিন্ন মন্দিরের পুরোহিত ও সেবাইতসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিতি ছিলেন।