বড়ভিটায় বাইপাস রাস্তা চাই না, মেইনরেড ছয় লাইন রাস্তা চাই।

রউফুল আলম, স্টাফ রিপোর্টারঃ বড়ভিটায় বাইপাস রোড চাই না মেইন রোড ছয় লাইন চাই। কয়েক ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধনে হাজার হাজার জনগণ। জনগণের এই দাবী মানতে হবে। মানতে হবে। বাইপাস রোড চাই না, চাই না। এই মানববন্ধনে সর্বস্তরের জনগণ অংশ নেয়। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা রড়ভিটা একটি ছোট ইউনিয়ন একটি মবস্বল এলাকা। জনসংখ্যা প্রায় ২৫ হাজার। এই বড়ভিটা ইউনিয়নের উপর দিয়ে রংপুর টু জলঢাকা- ডালিয়ার রাস্তা। আগে এই রাস্তাটি ছয় লাইনে উন্নীত করা প্রয়োজন। কিন্তু তার আগেই মেইন রাস্তার সাথেই বাইপাস রাস্তা ছয় লাইন করার জন্য এশিয়ান হাই ওয়ের লোকজন জমি অধিগ্রহণের জন্য জমি মাফ যোগ শুরু করেছেন। বাইপাস রাস্তায় মাফে যে জমিগুলো যাচ্ছ, অসহায়- দিন মজুরদের বসতবাড়ী, গুটিকয়েক ছাদঢালাই ও, টিনসেট পাকা বাড়ী, পাশাপাশি স্কুল, কবর স্থান ও অনেক আবাদী জমি। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় কয়েক ঘন্টাব্যাপিলী মানববন্ধনের আয়োজন করেন বাইপাস রোড চাই না বাস্তবায়ন কমিটি। বক্তব্য দেন শিক্ষক জামিল হোসেন, এমদাদুল হক, বুলবুল আহম্মেদসহ আর ও অনেকে।


বক্তব্যে হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম রেজা বলেন, বড়ভিটা – রংপুর সড়কের কামালের মোড় থেকে ময়দানপাড়া পর্যন্ত বাইপাস সড়ক করা হচ্ছে। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন শত শত মানুষ। এখানে বাইপাস সড়ক না করে প্রধান সড়কটি ছয় লেনে উন্নীত করা হোক।


শিক্ষক জামিল হোসেন বলেন, বাইপাস রাস্তার প্রয়োজন নাই এই এলাকায়। প্রধান সড়কটি ছয় লেনে উন্নীত করা হলে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হবে। বাইপাস হলে এলাকার মানুষ ব্যাপক ক্ষতি গ্রস্থ্য হবেন। হারাবেন জমি জায়গা। বসতবাড়ি ও কৃষি ক্ষেত।


বাইপাস হ’ল একটি রাস্তা বা মহাসড়ক, যা কোনও অন্তর্নির্মিত অঞ্চল, শহর বা গ্রাম এড়িয়ে বা “বাইপাস” করে, স্থানীয় ট্র্যাফিকের হস্তক্ষেপ ছাড়াই যানবাহন চলাচল করতে দেয়, বিল্ট-আপ অঞ্চলে যানজট হ্রাস করতে এবং রাস্তার সুরক্ষা উন্নত করতে পারে। ট্রাকগুলির জন্য বিশেষভাবে মনোনীত একটি বাইপাসকে ট্রাক রুট বলা যেতে পারে। তিনি এই বাইপাস সড়কের বিরোধিতা করে বলেন, মেইন সড়কের দুইপাশে অনেক জমি, সরকার মেইন সড়কটি ৪ লাইন কেন এখানে ছয় লাইন করতে পারে। এখানে কোন সমস্যা নাই।

সমস্যা হচ্ছে বড়ভিটার মতো একটি গ্রাম্য এলাকায় অনেকগুলো রেকর্ড ভুক্ত বাইপাস রাস্তা রয়েছে। ওইগুলোর সংস্কার না করে জনগণের ক্ষতিসাধন করে জমি অধিগ্রহণ করে এখানে নতুনভাবে বাইপাস করার প্রয়োজন মনে করি না। এই সরকার উন্নয়নমুখী সরকার। এই সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন উলুবনে মুক্তা ছড়ানো আমরা বরদাস্ত করতে পারি না। আমরা বাইপাস সড়কের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। পাশাপাশি এই এলাকার দীর্ঘ দিনের দাবী মেইন সড়ক ছয় লাইন চাই। প্রয়োজন ছাড়া জনগণের ক্ষতি করে বাইপাস রাস্তা বন্দ করো করতে হবে। এই এলকার জনগণ মেনে নিবে না। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, যুগান্তরের প্রতিনিধি আব্দুর রাজ্জাক, কিশোরগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রউফুল আলম, সাংবাদিক মিজানুর রহমান, একরামুল হক, আশরাফুল ইসলাম রাজু, দেলোয়ার রহমান,সবুজ ইসলাম, কাওছার হামিদ, বাদশাহ আলমগীর, সাংবাদিক ডলার, আবু সুফিয়ান, জাহাঙ্গীর, সাহেব আলী, মোরছালীন বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক ও কয়েকশত ফেসবুক সাংবাদিক। সবার একটাই দাবী আমরা বাইপাস রাস্তা চাই না, মেইন সড়ক ছয় লাইন রাস্তা চাই। মানববন্ধন শেষে ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের পক্ষে বাইপাস রাস্তা চাই না, মেইন রোড ছয় লাইন চাই বাস্তবায়ন কমিটি গঠিত হয়। বাস্তবায়ন কমিটি এক সপ্তাহের মধ্যে উপজেলা ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিবেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মুহম্মদ মনজুরুল করিম বলেন, এখন পর্যন্ত কোন কিছু চূড়ান্ত হয়নি। শুধু মাঠ জরিপ ও পর্যবেক্ষণ হচ্ছে।