ব্যবসায়ীকে কান ধরে উঠবোস করান নীলফামারী ডিমলায় ওসি।

রেজাউল করিম রঞ্জু,নীলফামারী প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম দোকানদারকে কান ধরে উঠবোস করান । এ বিষয়ে বাবুরহাট বাজারের ব্যবসায়ীগন গনস্বাক্ষরে একটি লিখিত অভিযোগে দিয়েছে দোকান মালিক সমিতিসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে। অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দোকান মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রায়হান। গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে ডিমলা-রংপুর মহাসড়কের আলম পেট্টোল পাম্প মোড় সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।ব্যবসায়ী ও পথচারী সূত্রে জানা যায়,গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে আলম পেট্রোল পাম্প মোড় সংলগ্ন এলাকায় সড়কে দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পথে ডিমলা থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম মোটরসাইকেলের মেকানিক ধনঞ্জয় রায়কে কান ধরে উঠবোস করান। এ সময় পথচারী ও বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন।

ভুক্তভোগী ধনঞ্জয় জানান, আমি রাতে দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পথে ওসি সাহেব বিনা কারণে আমার পথরোধ করে কান ধরে উঠবোস করায়। আমি লজ্জায় সমাজে মুখ দেখাতে পারছি না। একজন স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে এর বিচার চাই। মুদি ব্যবসায়ী আমিনুর জানান, রাতে ওসি সাহেব আমার দোকানে আসেন। এতো রাতে কেনো দোকান খোলা রেখেছি বলেই অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে আমাকে চড় থাপ্পড় মারার হুমকি দেন। প্রায় অর্ধশতাধীক ব্যবসায়ীরা জানান, আমরা সামান্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। সামান্য পুজির টাকা নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে প্রশাসন আমাদের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা।কিন্তু ওসি সাহেব আমাদেরকে নিরাপত্তা না দিয়ে মা-বোন তুলে গালিগালাজ, কান ধরে উঠবোস, চড় থাপ্পড় মারার চেষ্টাসহ তার অশ্লীল মন্তব্যবিষয়টি খুবই দুঃখজনক। এ ঘটনার দ্রুত বিচার দাবি করে আমরা ব্যবসায়ীগন গণস্বাক্ষরে ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিমলা দোকান মলিক সমিতিসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। বিচার না পেলে আমরা কঠোর আন্দোলনে যাবো। এ বিষয়ে ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামকে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি ।