বিরামপুরে রেল লাইনই যেন বিনোদন পার্ক: ঘটতে পারে মর্মান্তিক দূর্ঘটনা


বিরামপুর (দিনাজপুর) সংবাদদাতা \
বিরামপুর পৌর এলাকায় কোন বিনোদন পার্ক ও অবসর সময় কাটানোর জায়গা না থাকায় বিকেল হলে রেল লাইনে বাড়ে মানুষের আড্ডা। মুক্ত বাতাসে নিঃস্বাশ নিতে আসা মানুষের পদচারণায় মুখর রেল লাইনে ঘটতে পারে দূর্ঘটনা।
জানা গেছে, ক্রম বর্ধিষ্ণু বিরামপুর শহরে কোন বিনোদন কেন্দ্র নেই। ১৯৯৫ সালে বিরামপুর পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত ও প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত হলেও নাগরিক বিনোদনের কোন জায়গা করা হয়নি। ফলে শহরের ইট-পাথরের সান্নিধ্যে আবদ্ধ থেকে হাঁপিয়ে ওঠা লোকজন একটু মুক্ত বাতাসের জন্য বিকেল হলেই ছুটে যায় রেল লাইনে। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ লাইনের উপর হেঁটে বেড়িয়ে এবং গল্প আড্ডায় অবসর সময় অতিবাহিত করেন। আর এভাবেই ব্যস্ত থাকে বিরামপুর স্টেশন থেকে দক্ষিণ দিকে পলাবাড়ি গেট পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার রেল লাইন। এই লাইন দিয়ে বিকেলে ৬ থেকে ৮টি ট্রেন চলাচল করে থাকে। একারণে যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে দূর্ঘটনা। লাইনে ঘুরতে আসা পুরাতন বাজারের আশরাফুল ইসলাম বলেন, শহরের গুমোট পরিবেশ থেকে স্বস্তির আশায় তিনি মুক্ত বাতাসে অবসর কাটানোর জন্য প্রায়:ই এই রেল লাইনে আসেন।
বিরামপুর পৌর মেয়র অধ্যক্ষ আককাস আলী জানান, পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর বিগত দিনে পৌরসভা থেকে পার্ক নির্মাণের কোন পরিকল্পনা করা হয়নি। বর্তমানে তিনি পার্ক নির্মানের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন এবং এডিবি’র নিকট প্রকল্প জমা দিয়েছেন। এখন অর্থ প্রাপ্তি সাপেক্ষে পৌর সভার উদ্যোগে পার্ক তৈরি করা হবে।
বিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু জানান, মানুষের আনন্দ বিনোদনের জন্য তিনি নিজ অর্থায়নে ঢাকা-দিনাজপুর মহাসড়কের সাথে বিরামপুরের মির্জাপুর নামক স্থানে ৩৬ বিঘা জমির উপর একোয়া থিম পার্ক নামে একটি বিনোদন কেন্দ্র তৈরি করেছেন। এই বিনোদন কেন্দ্রটি শীঘ্রই উদ্বোধন করে দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *