নীলফামারীতে ভারতীয় ২১টি গরু আটক।

মো: রেজাউল করিম রঞ্জু,নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডিমলায় ২১টি ভারতীয় গরু আটক। পৃথক দুটি অভিযানে চোরাই পথে আসা এসব গরু আটক করেছে বিজিবি ও পুলিশ।
বিজিবি ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে চোরা কারবারী সদস্যরা সক্রিয় হয়ে অবৈধ পথে গরু আনায় ব্যস্ত। শুক্রবার মধ্যরাতে উপজেলার পূর্ব ছাতনাই ও পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের সীমান্ত দিয়ে চোরা কারবারিরা অবৈধ ভাবে নদী পথে ভারতীয় গরু আনার সময় থানার হাট ও কালিগঞ্জ বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা ১৩টি গরু ও শনিবার ভোর রাতে পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের সলতুর মোড় এলাকা থেকে ৮টি ভারতীয় গরু আটক করে।

ডোমার-ডিমলা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আলী মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে ছিলেন ডিমলা থানা পুলিশ।
স্থানীয়রা জানান, উপজেলার সীমান্ত এলাকা পূর্ব ছাতনাই,পশ্চিম ছাতনাই, বালাপাড়া, খোগা খড়িবাড়ি, টেপাখড়ি বাড়ি সহ বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু চোরাই পথে এনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করা হচ্ছে। প্রতি সপ্তাহে গড়ে প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ গরু আমদানি করা হচ্ছে এসব সীমান্ত এলাকা দিয়ে। কয়েক দিনের মধ্যেই আমদানির সংখ্যা চার গুণ বাড়বে বলে এলাকাবাসীর ধারণা।


স্থানীয় বাসিন্দা বুলু সরকার,রতন,মিলন জানান, সীমান্ত দিয়ে প্রতিনিয়ত ভারতীয় গরু ও মাদক চোরাচালান হচ্ছে। বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ জানিয়েও থামছেনা চোরাকার বারিদের দৌড়াত্ব। উল্টো মামলা হামলার স্বীকার হতে হয় প্রতিবাদ কারীদের।
থানার হাট ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার আবু সাইদ বলেন,প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার মধ্য রাতে টহলরত অবস্থায় ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে চোরা কারবারী সদস্যরা অবৈধ ভাবে নদী পথে ভারতীয় গরু আনার সময় বাংলাদেশ সীমান্তে আমরা ১৩ টি গরু আটক করি। এ সময় চোরা কারবারী টিমের সদস্যরা ভুট্টা ক্ষেত দিয়ে পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লাইছুর রহমান জানান,ডিমলা ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে একটি চক্র রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে চোরাই পথে গরু এনে হাট বাজারে বিক্রি করছে। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিমলা থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে চোরাই গরু ৮টি আটক করে। এগুলো সব ভারতীয় গরু, এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।