নীলফামারীতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ৩০ কেজি চালের বস্তা পরিবর্তন করে বিক্রির অভিযোগ।

মো: রেজাউল করিম রঞ্জু,নীলফামারী প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা দরে ৩০ কেজি চাল বিতরণে সরকারী সিল মোহর কৃত বস্তা পরিবর্তন করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ডিলার আব্দুল মজিদের বিরুদ্ধে। সরকারী ভাবে বরাদ্দকৃত ৩০ কেজির প্যাকেট জাত বস্তা খুলে বিতরণের কোন নিয়ম না থাকলেও ওই ডিলার অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে বরাদ্দকৃত বস্তা খুলে বিক্রি করেছেন এমন অভিযোগ সুবিধা ভোগীদের।


গতকাল সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাগুড়া ইউনিয়নের উত্তর সিঙ্গেরগাড়ী পারের হাট পয়েন্টের ডিলার আব্দুল মজিদ (ছোট) নির্দিষ্ট স্থানে চাল বিতরণ না করে পয়েন্ট হতে দেড় কিলোমিটার দূরে তার নিজ বাড়ীতে তদারকী কর্মকর্তার অনুপস্থিতে কেয়ার টেকারের মাধ্যমে প্রত্যেক সুবিধা ভোগীদের প্যাকেট জাত চালের বস্তা খুলে তাদের স্ব-স্ব বস্তায় চাল বিতরণ করছেন। চাল নিতে আসা কার্ডধারী , পেয়ারী, লাইজু বেগম, মমেনা খাতুন জানান, ডিলার প্রতিবারই আমাদের ৪’শ ৫০ জন সুবিধা ভোগীদের ৩০ কেজি ওজনের বস্তা পরিবর্তন করে সাথে নিয়ে আসা বস্তায় চাল বিতরণ করেন। এ সময় বস্তা চাল ওলট-পালট করার সময় মেঝেতে পরে গিয়ে আমরা ওজনেও চাল কম পাচ্ছি। তিনি প্রতিবারেই পরিবর্তন করা সরকারী বস্তা বিক্রি করেন।


এ বিষয়ে ডিলার আব্দুল মজিদের সাথে মুঠো ফোনে, সরকারী ভাবে সীল মোহরকৃত বস্তা পরিবর্তনের নিয়ম আছে কি’না জানতে চাইলে তিনি বলেন, চাল পরিবহন, বিতরণে শ্রমিকদের মজুরি দিতে হয়, এগুলো টাকা আমি কোথায় পাবো, তাই বস্তা খুলে নেয়া হচ্ছে। আপনারা চলে আসেন বিকেলে দেখা হবে।
জানতে চাইলে, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক তৌহিদুর রহমান বলেন, সরকারী ৩০ কেজির বস্তা পরিবর্তন বা বিক্রির কোন নিয়ম নেই। যদি কোন ডিলার তা করে তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।