নীলফামারীতে অপূর্ব সৌরভ ছড়াচ্ছে এ্যাকলিফা ও অলকানন্দা ফুল

রেজাউল করিম রঞ্জু,নীলফামারী প্রতিনিধি:
বাংলার ছয় ঋতুতে বিভিন্ন গাছে গাছে ফুলের মেলা বসে। রং-বেরঙের ফুলে সারা বছরই সেজে থাকে বাংলার প্রকৃতি। সুন্দরের প্লাবণে ভাসায় আমাদেরকে। ফুলের বিচিত্র গঠন ও মাধুর্যে ভরা গন্ধ আমাদের মনে জাগায় বিস্ময়কর অনুভ‚তি। এমন অনুভ‚তিতে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে প্রায় বাড়ীতে ফুটেছে এ্যাকলিফা ফুল।তবে স্থানীয়রা কাউন ফুল নামে বেশি চেনেন।দেখতে শস্য দানা কাউনের মতো,তাই নামকরণ করা হয়। আবির মাখা রংগে এ ফুল দেখতে কত অপূর্ব! কত নিখুঁত, নিপুণ গাঁথুনি সত্যিই এ ফুলের সবুজের বর্ণিল সাজ সবাইকে বিমোহিত করে তুলেছে,এ ফুলের গন্ধ নেই। আছে পাতার ভাঁজে ভাঁজে নুয়ে পড়া মায়াবি রূপের ঝলকানি। দারুণ মোহময়,দেখলে কেবল দেখতেই ইচ্ছে হয়।কবি সত্যেন্দ্র নাথ দত্তের নিচের কবিতার পঙক্তি থেকে বুঝা যায় ফুলের প্রতি ছিল তার অবাধ অনুরাগ জোটে যদি মোটে একটি পয়সা,খাদ্য কিনে ও ক্ষুধার লাগি।দুটি যদি জোটে অর্ধেকে তার, ফুল কিনি নিয়ো,হে অনুরাগী!তাই কবির অনুরাগের আতœপ্রকাশ ঘটিয়ে সদর ইউপির কেশবা কলেজ পাড়ার মরহুম শেরিফ উদ্দিনের ছেলে সোহাগ নিজ বাড়িতে এ ফুলের বাগান গড়ে তুলেছেন।সরেজমিনে গিয়ে সোহাগের সাথে কথা হলে তিনি বলেন,মানুষের মুগ্ধতা,ভালোবাসা,শুভেচ্ছা,এমনকি সহানুভ‚তি প্রকাশের জন্য ফুলের বিকল্প নেই।তাছাড়াও পরিবেশ ও প্রকৃতি সৌন্দর্য বর্ধনে আমি এ ফুলের বাগান করেছি। শীতকাল ছাড়া প্রায় সারা বছর এ ফুল সৌন্দর্য বিলায়।
আর এক ফুল হলদে সুন্দরী অলকানন্দা।এ ফুল বাহাগিলী গয়াকাশি ধাম আশ্রম কেন্দ্রে হলুদের আলপনা অপূর্ব সৌরভ ছড়াচ্ছে। ফুলগুলো দেখতে অনেকটা মাইক বা ঘণ্টার মতো।তাই কেউ কেউ মাইক ফুল ‘আবার কেউ ঘণ্টালতা’ও বলে থাকে।গাঢ় হলুদের বর্ণিলতায় ৫টি পাপড়ি আর সবুজ পাতার নান্দনিক গঠন সহজেই নজর কেড়ে নেয়। সেখানে বিভিন্ন পূজা পার্বণে অগন্তিক ভক্তবৃন্দদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।এসময় ঘন সবুজ গাছের চিরল চিরল পাতার উপর হলুদময় সুগভীর শোভায় অনেকে হারিয়ে যায় মনের গহিন অরণ্যে। ওই আশ্রমের পুরোহিত রঞ্জিত গোস্বামী বলেন,সৌন্দর্যের পাশাপাশি বিভিন্ন পূজা পার্বণে ফুলের গুরুত্ব অপরিসীম।
উপজেলা উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার আজিজার রহমান বলেন,এটি মুলত বসন্ত ও গ্রীষ্মকালের ফুল।তবে বর্ষার সময়ও ফুটতে দেখা যায়। ফুলটি প্রায় দু সপ্তাহ খানেক সতেজ থাকে।প্রকৃতির শোভা বর্ধন এবং মনের প্রফুল্যতার জন্য ফুলের চেয়ে অন্য কোনো কিছু তুলনীয় নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *