দিনাজপুর বিরামপুরে গরু ব্যবসায়ী হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার।

এনামুল মবিন(সবুজ), স্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুর বিরামপুর উপজেলার গরু ব্যবসায়ী খাদিমুল ইসলাম(৭০) এর ক্লুলেস হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন, হত্যাকান্ড সংশ্লিষ্ট আলামত জব্দ ও হত্যা মামলার প্রধান আসামীকে বিশেষ অভিযানে ৪ দিনের মধ্যে গ্রেফতার করেছে বিরামপুর থানা পুলিশ।

দিনাজপুর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, বিপিএম, পিপিএম-বার এর দিক নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন) শচীন চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস) মোঃ মমিনুল করিম, সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার, বিরামপুর সার্কেল, এ,কে,এম ওহিদুন্নবী ও বিরামপুর থানা অফিসার ইনচার্জ সুমন কুমার মহন্তের সার্বিক তত্বাবধানে নিখোঁজের সাত দিন পর গত ২৪ তারিখ বিকাল অনুমান ০৩ঃ৫০ মিনিটের সময় নিজ বসতবাড়ির টয়লেটের সামনে গর্তের মধ্যে মাটি ও বালু চাপা দিয়ে রাখা গরু ব্যবসায়ী খাদেমুল ইসলাম (৭০), পিতা-মৃত সুজার আলী মন্ডল, সাং- পূর্বপাড়া, থানাঃ বিরামপুর, জেলাঃ দিনাজপুর এর গামছা দিয়ে হাত পা বাঁধা অর্ধগলিত লাশ এর হত্যা রহস্য উদঘাটন করা হয়েছে। এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত)মোঃ নওয়াবুর রহমানসহ মামলা রহস্য উদঘাটনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন এসআই মোঃ এরশাদ মিয়া,এসআই হরিদাস বর্মন,এসআই মোঃ নিহার রঞ্জন সরকার, এএসআই মোঃ আনিছুর রহমান এবং অন্যান্য অফিসার ফোর্স ও পিবিআই টিম এই ঘটনার সাথে জড়িত মূল আসামি ডিসিষ্টের প্রতিবেশী মোঃ সায়েম আলী ওরফে শাহিন আলী(৩৫) কে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত আসামীর হলেন, মোঃ সায়েম আলী ওরফে শাহিন আলী (৩৫), পিতা-মৃত ওয়াজেদ আলী, সাং- পূর্বপাড়া, থানাঃ বিরামপুর, জেলাঃ দিনাজপুর।

বিরামপুর থানা অফিসার ইনচার্জ সুমন কুমার মহন্ত জানান, নিহত গরু ব্যবসায়ী খাদেমুল ইসলাম মঙ্গলবার ১৭ মে সন্ধ্যা থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। এ বিষয়ে তার ছেলে রায়হান কবির গত ২২ মে বিরামপুর থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেন। মামলার অনুসন্ধান শুরু করলে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে গরু ব্যবসায়ী খাদিমুল ইসলাম(৭০) হত্যা মামলার প্রধান আসামী সায়েম আলী শাহীন (৩৫) কে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরো জানান,আসামির স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে ঘটনাস্থলের আশপাশ হতে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ইটের অর্ধাংশ, মাটি খোড়ার কাজে ব্যবহৃত শাবল এবং আসামির বসতবাড়ি হতে ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিকে ২৮ তারিখ বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করলে সে দীর্ঘদিনের জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গত ১৭ তারিখ এশার নামাজের পর ভিকটিমকে তার নিজ বাড়িতে হত্যা করে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে মাটিতে পুতে রাখার কথা স্বীকার করে ফৌঃকাঃ বিঃ আইনের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন। “সতর্ক থাকুন, নিজেকে ও পরিবারকে নিরাপদ রাখুন”।