দিনাজপুরে পরিবহন শ্রমিকদের আটকের প্রতিবাদ সড়ক অবরোধ চলছে ধর্মঘট।

এনামুল মবিন(সবুজ), স্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স চালকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ৮ জনকে আটকের ঘটনা এবং বালুয়াডাঙ্গা সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালকদের হাতে শ্রমিক ইউনিয়নের এক নেতাসহ ২ শ্রমিক আহতের প্রতিবাদে সকাল থেকে জেলার সকল রুটে আকস্মিক গণপরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়েছে।

এতে আটকা পড়েছে পণ্য পরিবহন ট্রাকসহ অন্যান্য যানবাহন। ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীসহ অন্যান্য বাহন চালকরা। কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এবং বালুয়াডাঙ্গা বাসস্টান্ডসহ বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ করে রেখেছে ধর্মঘটের শ্রমিকরা।
বৃহস্পতিবার(২১ এপ্রিল) সকাল থেকে কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল সড়কের উপরে এলোপাতাড়িভাবে বাস রেখে সড়ক অবরোধ করে ধর্মঘট শুরু করেছে।


মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বী জানান, দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল হাসপাতাল ৬ জনকে চালককে আটকের ঘটনায় মধ্যরাত পর্যন্ত পুলিশ আনসারদের সাথে চালকদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স ভাঙচুর চালানো হয়েছে।

পরবর্তীতে পুলিশ অ্যাম্বুলেন্স চালক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন এবং চালক নন্দকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। আটক ৮ চালকদের মুক্তির দাবিতে রাতেই থানা পুলিশের সাথে আলোচনা করা হলেও সকাল পর্যন্ত সে চালকদের ছাড়েনি পুলিশ।

অন্যদিকে বালুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডাব্লুকে পিটিয়ে আহত করেছে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালকের শ্রমিকরা।

এ ঘটনায় জড়িত শ্রমিকদের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। অ্যাম্বুলেন্স চালক শ্রমিকদের আটক এবং সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক শ্রমিকদের নির্যাতনের পৃথক ঘটনায় ক্ষুব্ধ শ্রমিকরা

আটক চালকদের মুক্তি এবং বাস শ্রমিকদের উপর হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার না করা হলে ধর্মঘট থেকে সরে আসবে না বলে দাবি করেছেন সাধারণ শ্রমিকরা।

এদিকে আভ্যন্তরীন সড়ক, দুর পাল্লার কোচসহ সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। সড়ক অবরোধ থাকায় আটকা পড়েছে শত পন্যবাহী ট্রাক।