তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে এই অঞ্চলের মানুষের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটবে :চীনা রাষ্ট্রদূত


মো:রেজাউল করিম রঞ্জু,নীলফামারী প্রতিনিধি:
তিস্তাা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে সবদিক দিয়ে পরিবর্তন ঘটবে এই এলাকার মানুষের। জীবন মান উন্নয়ন, অর্থনীতি, প্রকৃতি ও পরিবেশ যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ সর্বোপরি মানুষের প্রতিটি ক্ষেত্রের উন্নয়ন হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যারেজ এলাকার সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে এবং দুই দেশের সরকারের প্রচেষ্টায় দ্রুত কাজ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত এইচই মি. লি জিমিং।
তিনি আরো বলেন, প্রতি বছর বন্যার কারণে তিস্তা পাড়ের হাজার হাজার মানুষ ঘর বাড়িসহ আবাদি জমি নদীতে বিলীন হয়ে যায়। এতে করে সর্বশান্ত হয় তিস্তা পারের মানুষ। তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে আলোর মুখ দেখবে তিস্তা পাড়ের মানুষ।
রোববার (৯ অক্টোবর) নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ডালিয়া তিস্তা ব্যারেজ ও লালমনিরহাট কমান্ড এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা জানান তিনি।তিনি আরো বলেন, তিস্তা পাড়ের মানুষরা কি চান সেটা আগে লক্ষ করা হচ্ছে। যেহেতু তিস্তা আন্তর্জাতিক নদী সে কারণে লাভ ও ক্ষতি কি রকম হচ্ছে সেটিও বিবেচনায় নেয়া হচ্ছে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছিলেন, লালমনিরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড রংপুর অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী আনোয়ারুল হক ভুইয়া, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী খুশি মোহন সরকার, পাউবো ডালিয়া বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশফাউদৌলা প্রিন্স, ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন প্রমুখ।
এ সময় এমপি বলেন, তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন সময়ের দাবী হয়ে দাঁড়িয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় আলোর মুখ দেখছে। তিস্তা নিয়ে চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং’কে দেখে মনে হলে তার মনোভাব পজেটিপ। আমরা আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে সু-খবর পাবো। তিস্তা পরিদর্শন করে তিনি অনেক খুশি হয়েছেন।
শেষে চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিংসহ ৩ সদস্য বিশিষ্ট দলটি রংপুর বিভাগীয় চীনা কোম্পানী কৃর্তক চলমান বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন করবে বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *