ডিমলা ছাতুনামায় প্যারাগন কোম্পানির বর্জ্যর দুর্গন্ধ থেকে হামাক বাঁচান।

ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধিঃ স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল। সেই স্বাস্থ্য যখন প্যারাগন কম্পানির বর্জ্যর দুর্গন্ধে দিন দিন অস্বাস্থ্যকর হয়ে পড়ছে তখন এর দায়ভার কে নিবে? নীলফামারী ডিমলা উপজেলার ৮ নং ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়ন এর ছাতুনামা এলাকায় প্যারাগন কোম্পানি ধোকা দিয়ে বোকা বানিয়ে সহজ সরল লোকদের চাকুরী ও মোটা অংকের টাকা দেয়ার লোভ দেখিয়ে শত শত এককর জমি কোম্পানির নামে লেখে নেয়।

এলাকাবাসী মমতাজ উদ্দিন, এলিজা বেগম, বানাছা বেগম,আঃ মান্নান,ইউপি সদস্য নুর হোসেন,প্রমূখ জানেন কার জমি কে বিক্রি করছে তার কোন হদিস নাই। প্রথমে তারা বলেছিল কোম্পানিটি এখানে প্রতিষ্ঠিত হলে এ এলাকা উজ্জ্বল হবে। এখন দেখি এখানে তারা তাদের জনবল নিয়োগ দিয়ে জৈব সার তৈরি করছে।

 তারা তাদের জায়গায় কি তৈরি করছে করুক তাতে আমাদের কোন দুঃখ নেই।  এক দিকে আমাদের দেশে জৈব সারের চাহিদা পূরণ হচ্ছে এটি ভাল দিক। অপর দিকে দৈনন্দিন টলি চালিয়ে রাস্তা ঘাটের বেহাল দশা বানিয়েছে। জুতা মোজা পরা তো দুরের কথা সেন্ডেল পরিয়ে হাটা সম্ভব না। জৈব সার তৈরি করার উপাদানগুলো যত্রতত্র ফেলার প্রাদুর্ভাবে সারা ছাতুনামা মৌজা জুড়ে গন্ধ আর গন্ধ। ঝাকে ঝাকে বর্জ্যতে পরা মাছি ভাতের পাতিলে, খাবার প্লেটে, পানি পান করার গ্লাসে পালায় পালায় লেগে আছে।

যার দরুন বায়ুবাহিত রোগ লেগেই আছে। এই ভাবে আর কত দিন টেকা যায় তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সাংসদ, উপজেলা প্রশাসনের নিকট হামার অনুরোধ হামাক বাঁচান।হামান ছেলে মেয়ে গিলাক বাঁচান।হামার উপর দয়া করেন।

এ ব্যাপারে কথা হয় ঝুনাগাছ চাপানী ইউপি চেয়ারম্যান একরামুল হক চৌধুরী সঙ্গে তিনি বলেন আমার ইউনিয়নের ছাতুনামা এলাকাটি আর্কষিক বন্যায় প্রতি বছর  অনেকের বাড়ি ঘর আবাদি ফসল কেড়ে নিয়ে যায় তিস্তা নদী। তাদের এই কষ্ট লাঘবের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনা মজিব কেল্লা স্থাপন করার সিন্ধান্ত গ্রহন করেন ও তা বাস্তবায়নের কাজ চলমান রয়েছে।  এর পাশাপাশি নদী ভাঙ্গন ভূমিহীন ৫১টি পরিবারের জন্য মুজিব শতবর্ষ ঘর স্থাপন করা হয়েছে।বর্জ্যর দুর্গন্ধের কারণে সেখানেও বসবাসের অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। আমি আশা কোম্পানি যেন দুর্গন্ধ জনিত সকল বর্জ্য অতি দ্রুত মোচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

মুজিব কেল্লাটি একটি জনকল্যাণমুখী আশ্রায়িত প্রতিষ্ঠান সে প্রতিষ্ঠানটিতে যাতায়াতে জন্য যে রাস্তার প্রয়োজন সে রাস্তা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বাস্তবায়ন করার কাজে জমি দিয়ে মালিকপক্ষগন সহযোগিতা করলেও প্যারাগন কোম্পানি এক চুল জমি দিতে রাজি না-থাকায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে।