ডিমলায় ছাত্র ছাত্রীদের প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে রাস্তা অবরোধ

ডিমলা নীলফামারীর ডিমলা। 

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ডালিয়া দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীদের বিভিন্ন দাবি নামানায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে রাস্তা অবরোধ। সূত্রে জানা যায় যে  গ্রীষ্মের দাবদাহ গরম থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ফ্যানের বৈদ্যুতিক তারের লাইন কাটা।পিপাসা মিটাতে ও পানির যে অপর নাম জীবন সে টিউবওয়েলের সমস্যা। 

জরুরি কাজের জন্য যেটি বিশেষ প্রয়োজন বাথরুম বা টয়লেট সেটি ও নাই।উক্ত বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্র মাহিন ও সাইফুল ইসলাম দৈনিক আলোকিত প্রত্রিকাকে জানান খেলাধুলা ও বিনোদন যে শিক্ষার একটি অংশ সেই বিনোদনের ও ব্যবস্থা নাই। লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে স্মৃতি হিসাবে যে শহীদ মিনার সেটিও অবহেলিত অবস্থায় পরে আছে। 

নামাজ পড়ার ঘর ও নাই।শ্রেণিকক্ষে বেঞ্চ ভাঙ্গাচুরা ও এলোমেলো।লেখা পড়া শেখার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্লাকবোর্ড রয়েছে সেটিতে কোন কিছু লিখলে মিশে যায় না। বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্ররা বলেন আমাদের প্রাকটিকাল ক্লশ কোনদিন হয়নি।তারা আরও বলেন বছর শেষেরদিকে প্রায় এখনও পুরাতন বই পড়তে হয়। নতুন কোন বই দেওয়া হয় নাই।

এব্যাপারে প্রধান শিক্ষিকা শাহিনা ভিডিও সাক্ষাৎকারে বলেন তারা আমার টেবিলে কোন লেখিত অভিযোগ দেয়নি।সকাল দশটা থেকে বিকাল তিনটা পর্যন্ত অবরোধ চললে ও কোন শিক্ষক এব্যাপারে তাদের কিছু বলেননি। দীর্ঘ সময় ধরে অবরোধ চললে ও শিক্ষকরা কোন মানবিক দিক দেখায়নি তাদের। 

অবরোধটি স্কুলের মেইল গেটের সামনে হলেও প্রধান শিক্ষিকা বলেন আমি জানিনা তারা কি করতেছে।বিদ্যালয়ে ১৩জন শিক্ষক ও চারজন কর্মচারী থাকা সত্ত্বেও ক্লাশরুম ময়লা আর্বজানার জন্য ক্লাসে ছাত্র ছাত্রীদের মন বসেনা।

ডালিয়া দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা বলেন যে আমাদের এসব দাবি পুরন না-হওয়া পর্যন্ত রোড অবরোধ ছারবনা।অবরোধ চলাকালীন অবস্থায় ডিমলা উপজেলার নির্বাহী অফিসার জনাব মো:বেলায়েত হোসেন দ্বায়িত্বের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিষয়টি সমাধানের ব্যবস্থা করেন।প্রধান শিক্ষিকাকে অদক্ষ  বলে চিহ্নত করেন ও তিনি একথা বলেন যে শিক্ষিকা ছাত্র ছাত্রী আগলে রাখতে পারেননা সে কিসের প্রধান শিক্ষিকা।

উপজেলা ইউ এন ও  মহোদয়ের  সমাধানকল্পে উপস্থিত ছিলেন অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মইনুল হক সহ কমিটির সদস্যবৃন্দ ও খালিশা চাপানী ইউনিয়নের সুযোগ্য চেয়ারম্যান জনাব মো :সহিদুজ্জামান সরকার ও অভিভাবকগন।প্রতিষ্ঠানের সকল সমস্যার সমাধানের দ্বায়িত্ব উক্ত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মহোদয়কে দিয়ে  তিনি বলে একমাসের মধ্যে তোমাদের সব সমস্যা সমাধান করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *