চিরিরবন্দরে লিচুর গাছে মুকুলের সমারোহ পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক বাম্পার ফলণের সম্ভাবনা।

এনামুল মবিন(সবুজ), স্টাফ রিপোর্টারঃ সবুজ পাতার ফাঁক গলিয়ে ডালপালা আর শাখা-প্রশাখার মাথায় মুকুলের সমারোহ। এবছর এখন পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে আর গাছে মুকুলের পরিমাণও অনেক বেশী। চাষিরা বাগানের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। লিচু চাষিরা মনে করছেনে গতকয়েক বছরের তুলনায় এবার লিচুর ভালো ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।
উত্তরের দিনাজপুর জেলার মাটি ও আবহাওয়া লিচু চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় কৃষকরা লিচু চাষে ঝুঁকে পড়ছে। দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর ছাড়াও সদর ,বিরল, বীরগঞ্জ, ফুলবাড়ি, বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, খানসামা ও কাহারোল উপজেলায় উল্লেখযোগ্য পরিমানে লিচু উৎপাদন হয়।


দিনাজপুর জেলায় ৭ প্রকারের লিচুর আবাদ হয়। সেগুলো হলো- মাদ্রাজী, বোম্বাই, চায়না-থ্রি, বেদানা, মোজাফ্ফরপুরী, বেদানা-২ ও কাঠালী। তবে বাণিজ্যিকভাবে মাদ্রাজী, বোম্বাই, চায়না-থ্রি আর বেদানার আবাদ সবচেয়ে বেশী। এর মধ্যে বোম্বাই লিচু ৩ হাজার ১৭০ হেক্টর জমিতে, মাদ্রাজী লিচু ১ হাজার ১৬৬ হেক্টর জমিতে, চায়না-৩(থ্রি) লিচু ৭০২.৫ হেক্টর জমিতে, বেদেনা লিচু ২৯৪.৫ হেক্টর জমিতে, কাঠালী লিচু ২১ হেক্টর জমিতে এবং মোজাফ্ফরপুরী লিচু ১ হেক্টর জমিতে আবাদ হচ্ছে।


লিচু চাষিরা জানায় , গত ১০ বছরেও লিচুর দাম বাড়েনি। শ্রমিকের মজুরিসহ সকল উপকরণের দাম কয়েকগুণ বাড়লেও লিচুর দাম ১০বছরেও অপরিবর্তিতই থেকে গেছে। কৃষক পর্যায়ে মাদ্রাজী বিক্রি হয় ১৫০ থেকে ২০০ টাকা প্রতি একশ লিচু, বোম্বাই ২০০ থেকে ২৫০ টাকা, বেদানা ৫০০ থেকে ৭০০ আর চায়না-থ্রি ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত।
চিরিরবন্দরের ৩ নং ফতেজংপুর চম্পাতলী এলাকার লিছু চাষি মোঃ রিফাত বিন সাঈদ বলেন, লিচুর উৎপাদন ভালো হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না থাকলেই হলো। অনেক সময় ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে প্রচুর ক্ষতি হয়। এবার এখন পর্যন্ত দুর্যোগ দেখা যায়নি। তবে সামনের দিনগুলোই লিচুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ সময়। এ সময়টা ভালোভাবে কেটে গেলেই ফলন ভালো হবে।


উপজেলার ১২ নং আলোকডিহি গ্রামের লিচু চাষি মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ফলন ভালো হবে। কোনো গাছে প্রচুর মুকুল আছে, গুটিও ভালো আসছে। এখন বাকি সময়ের মধ্যে কয়েকবার বৃষ্টির প্রয়োজন হবে লিচুগাছের জন্য। বৃষ্টি না হলে খরায় গুটি ঝরে পড়বে। তখন ফলন নিয়ে শঙ্কা দেখা দেবে।


চিরিরবন্দর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জোহরা সুলতানা বলেন, চিরিরবন্দরে ৫৫৫ হেক্টর জমিতে লিচুর আবাদ হয়েছে এবার।গত কয়েক বছরের তুলনায় লিচুর মুকল ভালো আসছে আবহওয়া অনুকুলে থাকলে লিচুর ভালো ফলনের সম্ভাবনা আছে।কৃষি অফিস থেকে লিচু চাষিদের সব ধরনের সহযোগীতা করা হচ্ছে।