গাছের কী অপরাধ ছিল’

ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধিঃ

গাছের-কী-অপরাধ-ছিল

তিস্তা ডিগ্রি কলেজ এর উপাধ্যক্ষ ও গয়াবাড়ি দিলরুবা মোখলেছুর  কিন্ডার গার্টেন এর পরিচালক মোখলেছুর রহমান বলেন, ‘জমিজমা নিয়ে আমার কারো সঙ্গে কোন ঝামেলা নেই। ২১৮৫ নং খতিয়ান ৭৮১৯ নং দাগ, যার জে এল নং ২৪ মোট ৪১ শতাংশ জমি আমি ক্রয় করি। এ সময় জমিতে জোর পূর্বক বাড়ী করে থাকা আয়েনাল হক নামের একজন সমস্যার সৃষ্টি করতে চাইলে আমি বিজ্ঞ আদালতের শরণাপন্ন হলে বিজ্ঞ আদালত আমার পজিশন নির্ণয় করে জমি বুঝে দিয়েছেন। সে মাফিক আমি ১০ শতাংশ জমিতে ফলজ ও কাঠের চারাগাছ রোপন করেছি। আইনে পেরে উঠতে না পেরে প্রতিপক্ষ  আমার বাগানের গাছ ভেঙ্গে দিয়েছে।আমি থানায় অভিযোগ করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

নীলফামারী ডিমলা উপজেলা ৫ নং গয়াবাড়ী শুটিবাড়ী হাট এ অবস্থিত দিলরুবা মোখলেছুর কিন্ডার গার্টেন সংশ্লিষ্ট জমিতে এ ঘটনা ঘটে।প্রতিষ্ঠান পরিচালক মোকলেছুর রহমান বলেন,  আয়েনাল হক ও  তার স্ত্রী ফরিদা বেগম এর বিরুদ্ধে তার বাগানের গাছ ভেঙ্গে  দেয়ার অভিযোগ করেছেন।

উপাধ্যক্ষ মোখলেছুর রহমান  ৮ শতাংশ জমিতে তিনি ২০১১ ইং সনে তিনি কিন্ডারগার্টেন ( কেজি) স্কুল স্থাপন করেছেন। অবশিষ্ট জমিতে পুকুর ও  চারাগাছ  স্থাপন করেছেন।  চারাগাছ গুলো বড়হতে না হতে একের পর ভেঙে দিচ্ছে। এমন কি আয়েনালের স্ত্রী অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ,নিজ জামা কাপড় ছিরা সহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি ও ভয় ভিতি প্রদান করে আসতেছে। এব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদ এর

 চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য এবং এলাকার মান্যগন্য ব্যাক্তিদের বিষয়টি  অবগত করেছি। এতে প্রতিকার নাহলে আইনের আশ্রায় নিব। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হক বলেন,  বিষয়টি অবগত হয়েছি।তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

এলাকাবাসী লিটন, আব্দস ছামাদ ও লাম  বলেন, এটি অত্যন্ত দুঃখজনক ও ন্যাক্কার জনক, কলহ হলে মানুষ মানুষের মধ্যেই হতে পারে গাছের কি অপরাধ ছিল? গাছ কে ধ্বংস করে প্রকৃতির বিপর্যয় ডেকে আনতেছি।

 যারাই এর সঙ্গে জড়িত থাকুক তাদের কঠিন শাস্তি দাবি করছি। সোমবার আয়েনাল হক ও তার স্ত্রী সঙ্গে  গাছের চারা ভেঙ্গার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা অস্বীকার করে বলে, আমরা এমনটা করি নাই। কে বা কারা ভেঙ্গেছে তা দেখি নাই। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *